সভাপতির বানী

গারো পাহাড়ের পাদদেশে সবুজ শ্যামলিমায় পরিপূর্ণ শেরপুর জেলা্র প্রথম বেসরকারি কলেজ ডাঃ সেকান্দর আলী কলেজে ওয়েবসাইট চালু হচ্ছে জেনে আমি অত্যন্ত আনন্দিত।আমরা সবাই অবগত আছি যে,‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ বর্তমান সময়ে রাজনীতিতে একটি উচ্চকিত শ্লোগান। বর্তমান বিশ্বকে এখন আমরা বলি ‘গ্লোবাল ভিলেজ’। হাতের মুঠোয় বিশ্ব দেখানোর লক্ষ্য নিয়েই ২০০৮ সালে সাধারণ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ-এর নির্বাচনী ইশতেহারে একটি গুরুত্বপুর্ণ দিক ছিল ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গিকার। ২০২১ সালে পালিত হবে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী।তাই এ সময়ের মধ্যে দেশের যাবতীয় কার্যাবলি যেমন সরকার ব্যবস্থা ,

অধ্যক্ষের বানী

সবুজ শ্যামলিমায় পরিপূর্ণ গারো পাহাড়ের কোল ঘেষে গড়ে ওঠা ছোট্র শহর শেরপুর।যা একসময় কামরূপ রাজ্যের অর্ন্তভূক্ত ছিল। মোঘল সম্রাট আকবরের সময় এই এলাকা ‘দশকাহনিয়া বাজু’ নামে পরিচিত ছিল। পরবর্তী সময়ে শেরআলী গাজীর নামানুসারে রাখা হয় ‘শেরপুর’।নানা ইতিহাস ও ঐতিহ্যে পরিপূর্ণ থাকার পরও এই শেরপুরের শিক্ষার হার ছিল নগণ্য। শহরে দু’টি কলেজ থাকার পরও

ডোনার এর বানী

স্বাধীনতাত্তোর শিক্ষা ও অর্থনীতিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অনগ্রসর শেরপুরের শিক্ষার উন্নয়নের লক্ষ্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা আখতারুজ্জামান শেরপুরে একটি বেসরকারী কলেজ প্রতিষ্ঠা করার পরিকল্পনা করেন। তাঁর পরিকল্পনায় ও সাবেক এমপি মরহুম আলহাজ্ব নিজাম উদ্দিন আহাম্মদসহ শেরপুরের বিশিষ্টজনদের অর্থনৈতিক ও সামাজিক পৃষ্টপোষকতায় অস্থায়ীভাবে জি. কে. উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৯৮৬ সালে শেরপুর জেলা কলেজ